তুলসীদাসের মতে ৫ ব্যক্তি জীবনে ধনী হয় না

0

গোস্বামী তুলসীদাসকে শুধুমাত্র ‘রামচরিতমানস’-এর রচয়িতা বলে মনে করলে ভুল হবে। আসমুদ্রবিমাচল এই ভূখণ্ডে তুলসীদাস নামটি মানুষের চেতনায় অন্য আরেকটি কারণে উজ্জ্বল হয়ে রয়েছে। সেই কারণটি তার নামে প্রচলিত দোহাবলি। দুই পংক্তির আশ্চর্য সব কবিতার মধ্যে ধরা রয়েছে নৈতিকতার সদানবীন পাঠ।

এই কবিতাগুলি সত্যিই তুলসীদাসের রচনা কি না, তা নিয়ে বিতর্ক থাকলেও একথা বলাই যায়, তার নামে প্রচলিত এই আপ্তবাক্যগুলির অন্তর্নিহিত সত্যতাকে কেউ অস্বীকার করতে পারেননি কয়েকশো বছরেও। অনেক সময়ে তুলসী-দোহাবলী নিহিত থেকেছে ‘রামচরিতমানস’-এর মধ্যেই। রামচন্দ্রের মুখ নিঃসৃত উপদেশ হিসেবে গণ্য হয়েছে এই সব নীতিকথা।

ধনলাভের রহস্য কী- লক্ষ্মণের এই প্রশ্নের উত্তরে রাম জানিয়েছিলেন, কোন কোন ব্যক্তি জীবনে ধনী হতে পারেন না। বলাই বাহুল্য, এই উপদেশ দোহার আকারেই জনপ্রিয়তা লাভ করে। কী রয়েছে সেই উপদেশে?

  • নেশাগ্রস্ত ব্যক্তি কখনো ধনী হতে পারে না। নেশাই তার যাবতীয় উপার্জনকে ডুবিয়ে দেবে।

  • যে বণিক তার অংশীদারদের ঠকানোর মানসিকতা বহন করে, সে কখনই ধনী হতে পারে না।

  • অতিরিক্ত লোভী ব্যক্তির বিপুল ধনলাভ সম্ভব নয়। লোভ তাকে পিছনে টেনে রাখে।

  • অন্যের প্রতি দুর্ব্যবহারকারী ব্যক্তি ধনী হতে পারে না।

  • উদ্ধত ব্যক্তির পক্ষে ধনী হওয়া অসম্ভব।

হয়তো এই দোহাবলীগুলো গণমানসেরই প্রতিফলন। যে কোনো ধর্ম, যে কোনো সুষম সমাজেই এই নৈতিকতা বজায় থাকে। এখানে তুলসীদাস তাকেই মান্যতা দিয়ে গিয়েছেন।

Share.